Graphics Design বা গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের কিছু ভুল

বর্তমানে অনেক বেশি কাজের চাহিদার মধ্যে গ্রাফিক্স ডিজাইন অন্যতম। কিছুদিন আগেও মানুষ গ্রাফিক্স শিখলেই কাজ পেতো অনেক দ্রুতই এখনও পায় তবে বর্তমানে অনেক প্রতিযোগীতা যদিও তবে শিখতে পারলে অনেকটাই সুবিধা কাজের ক্ষেত্রে। আমরা ডিজাইন নিয়ে যতকিছু দেখি সবই মূলত গ্রফিক্স এর কাজ। আর দিন দিন এই সৃজনশীল কাজের চাহিদাটা অনেক বেশি বাড়ছে। যারা গ্রাফিক্স এর কাজ শিখতেছে তাদের অভিজ্ঞতা বা কাজের দক্ষতার ভিত্তিতে তারা চাকরীর বাজারে অনেক দাম পায়। অনলাইন মার্কেট প্লেসেও অনেক বেশি চাহিদা আছে গ্রাফিক্স ডিজাইনাদের। আমাদের দেশের অনেক অভিজ্ঞতা সম্পূর্ণ গ্রাফিক্স ডিজাইনার আছে।

 

Graphics Design বা গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের কিছু ভুল

গ্রাফিক্স ডিজাইনে ভালো করার ৯টি উপায়

ব্লগের শিরোনাম দেখেই বুঝতে পারছেন কি নিয়ে আলোচনা করা হবে এখানে। আমি মূলত গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের কিছু ছোট ছোট ভুল নিয়ে আলোচনা করবো এখানে। তারা এই ভুলগুলো না করলে অনেক ভালো করতে পারবে গ্রাফিক্স ডিজাইন দিয়ে। তাহলে আসুন এখন আলোচনা করা যাক বিষয়গুলো নিয়ে। 

 

(+) ডিজাইনকে অনেক জটিল করে ফেলা

এই বিষয়টা আমরা যারা গ্রাফিক্স এর কাজ করি তারা অনেক সময়ই করে থাকি। দেখা যাচ্ছে যে অনেক সহজ একটা কাজ আপনি ক্লায়েন্টকে দেখানোর জন্য ঘুরিয়ে করতে গিয়ে জটিল করে ফেলছেন। আর অনেক ক্লায়েন্টই থাকে যারা গ্রাফিক্স এর কাজে দক্ষ। অনেক সময় এমন হয় যে নিজে কাজ জানার পরেও কম্পানি বা পরিস্থিতির কারণে ফ্রিল্যান্সার দিয়ে করাতে হয়। আর সেই ক্লায়েন্টের কাজ করতে গিয়ে অনেক সময় সহজ কাজও জটিল করে করা হয়। যেটা ক্লায়েন্ট এর সন্দেহের অন্যতম কারণ হয়। আর এই ভুল করার কারণে পরবর্তীতে কোন কাজ আসলে সেটা আর দিতে চায় না জটিল হবে এবং সময় বেশি লাগবে বিধায়। 

 

(+) সময়ের আগে কাজ শেষ না করা

কিছুদিন আগের ঘটনা আমি কাজ শেষ হওয়ার তিনদিন আগে জিজ্ঞেস করেছিলাম কাজের কি অবস্থা সে বলল তিনদিনের মধ্যেই হয়ে যাবে। আসলে আমরা অনেকেই ডেড লাইনের জন্য কাজ রেখে দিই। নিয়ম হলো তার আগেই কাজ শেষ করে রিভিউশান করা যাতে ভূল না হয় কারণ একটা কাজ আরেকটা কাজ নিয়ে আসে। আপনার একটা কাজ যদি ভালো হয় তবে পরবর্তী কাজগুলোও ক্লায়েন্ট চাইবে আপনাকে দিয়ে করাতে কারণ পরিচিত থাকলে কাজ করাতে সুবিধা হয় বোঝাতেও সুবিধা হয়। তাই কোন কাজ শেষ করার ক্ষেত্রে বিষয়টা খেয়াল রাখবেন যেন আপনার কাজটা এমনদম শেষ সময়ে শেষ না হয়। 

 

(+) বেশি চিন্তাভাবনা করা

সৃজনশীল কাজে চিন্তা করা ভালো তবে অতিরিক্ত চিন্তা অনেক সময় আপনার কাজের মানকে ক্ষতিগ্রস্থ করে থাকে। আর তাই কাজের সময় অনেক বেশি চিন্তিত হবে না এতে করে কাজ খারাপ হওয়ার সম্ভবনা থাকবে। যতটা সম্ভব কম চিন্তা করে কাজ শেষ করার চেষ্টা করবেন তাহলে ক্লায়েন্ট এর কাজ সঠিক সময়ে দিতে পারবেন। 

 

(+) ক্লায়েন্টের মতামতকে মূল্যায়ন কম করা

আপনি যেমন আপনার কথার দাম দেয় এমন লোকে বেশি পছন্দ করেন তেমনি ক্লায়েন্ট যেটা বলবে যেভাবে কাজ করতে বলবে সেভাবে যদি আপনি কাজটা করে দেন তবে আপনার জন্যই ভালো। আর তাই আপনার উচিত গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে ক্লায়েন্টের মতামতকে মূল্যায়ন করা। ক্লায়েন্টের কোন ভুল হলে সে তা বুঝবে এবং তার জন্য আপনাকে বিনয়ের সাথে বলবে বা পেমেন্ট বাড়িয়ে দেবে তবে সে যেভাবে বলে সেটার প্রতি দৃষ্টি রাখতে হবে। অনেক সময় আমরা ক্লায়েন্ট বলার সময় বিষয়গুলোর প্রতি বেশি সচেতন থাকি না আর যার ফলে দেখা যায় যে, ক্লায়েন্ট যেটা বলেছে সেটা সঠিকভাবে মনেও থাকে না। তখন নিজের ইচ্ছে মত একটা ডিজাইন করে দেওয়া হয় তখনই সমস্যা সৃষ্টি হয়। 

 

(+) বানান ও ব্যকরণ ভুল করা

গ্রাফিক্স ডিজাইনদার দের মধ্যে এই বিষয়টা বেশি লক্ষ করা যায় কারণ এখানে গ্রামার ব্যবহার করা কঠিন। অনেক সময় ইংরেজী বা বাংলায় কোন কাজ দিলে সেটার বানানের ব্যপারে সচেতন থাকে না অনেক ডিজাইনার। এতে করে ক্লায়েন্ট এর সমস্যা হয়। দেখা যাচ্ছে যে কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাজ অথচ আপনি বানান ভুল করেছেন তাহলে বিষয়টা অনেক বাজে দেখাবে। তাই কাজের মাঝে অবশ্যই আপনাকে বানানের বিষয়ে অনেক বেশি যত্নশীল হতে হবে বিশেষ করে ইংরেজী বানান হরে গ্রামারের প্রতি বেশি দৃষ্টি দিতে হবে। 

 

(+) নিজের পছন্দকে বেশি মূল্যায়ন করা

ক্লায়েন্ট আপনাকে যা বুঝিয়ে দিয়েছে আপনার উচিত সেটা অনুসরণ করেই কাজ করা। নিজের ভালো লাগে বিধায় আপনি আপনার মন মতো করে দেবেন তাহলে আর ফ্রিল্যান্সিং করতে হবে না আপনাকে। কারণ আমরা জম্মগতভাবেই সুন্দরকে বেশি পছন্দ করে থাকি আর আপনার কাছে যেটা সুন্দর আমার কাছে সেটা নাও মনে হতে পারে। তাই আপনাকে যেই রকম ডিজাইন করে দিতে বলা হয় সেই রকমই করে দেওয়ার চেষ্টা করবেন তাহলে আপনার কাজের বা আপনার প্রতি আন্তরিকতাটা বেড়ে যাবে ক্লায়েন্টের। 

 

(+) রেডিমেট ইমেজ ব্যবহার করা

অনেক সময় গ্রাফিক্স ডিজাইনরা এই কাজটা করে থাকে। তাদের কাছে পূর্বের কোন ছবি থাকে বা ইমেজ থাকে আর সেটাই নতুন কাজের সাথে যুক্ত করে দেয়। এটা আসলে এক হিসেবে অনেক খারাপ কাজ।কারন ক্লায়েন্ট আপনাকে নতুন করে পেমেন্ট করেছে নতুন কাজের জন্য আপনি অবশ্যই সেটা নতুন করে আরও সুন্দর করে করে দেবেন। আর যদি ঘটনাক্রমে একই ক্লায়েন্ট বা পরিচিত ইমেজটাই ২য়বার যায় তবে পরবর্তীতে আপনার কাজ পাওয়ার আশা অনেক কম থাকবে। তাই রেডি ইমেজ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করবেন। 

 

(+) বেশি ফ্রন্ট ব্যবহার করা

একটা ডিজাইনের মধ্যে কিছু লেখা থাকলে সেটাতে অনেক বেশি ফ্রন্ট ব্যবহার করা আসলে কোনভাবেই উচিত নয়। তাকে ডিজাইন দেখতে আরও বেশি খারাপ লাগে। অনেক সময় ডিজােইনে বেশি ফ্রন্ট ব্যবহার করতে গিয়ে ফ্রন্ট এর নামই জানা থাকে না। তাই চেষ্টা করা উচতি ডিজাইন করার সময় যতটুকু সম্ভব কম ফ্রন্ট ব্যবহার করতে। কোথায় কোন ফ্রন্ট বসালে দেখতে ভালো দেখায় সেটা আমাদেরকে জানতে হবে। 

 

গ্রাফিক্স এর কাজ যারা ভালোমত পারেন তাদের কাজের চাহিদা অনেক বেশি। ইদানিং অনলাইনে কিছু পেইড সাইট আছে যেখানে ছোট ছোট কাজগুলো অনেক সহজেই করা হয়। তাই আমার ব্যাক্তিগত পরামর্শ হলো আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইনকে ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে চান তবে অবশ্যই কাজটাকে অনেক বেশি গুরুত্ব দিন এবং ভালোমত শিখে কাজ করুন। আর প্রত্যেকটা ক্লায়েন্টের সাথে ভালো ব্যবহার করুন। সামান্য ভুলের জন্য যেন আপনার ক্লায়েন্ট হাতছাড়া না হয় সেদিকটা বিশেষ ভাবে নজর দেবেন। এতে করে আপনার কাজে অভাব হবে না। কারণ বর্তমানে যারা মার্কেট প্লেসে ঢুকছে তারা বেশিদিন টিকতে পারছে না তাদের কাজের ব্যপারে অভিজ্ঞতা বা ধৈর্য্যের কারণে। প্রত্যেকটা কাজই সুন্দর যদি সেটা নিজের ভেতর থেকে করা হয়। 

 

উপরের ছোট ছোট ভুলগুলো চেষ্টা করবেন না করার বা কম করার। তাহলে আপনার গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে ক্যারিয়ার অনেক ভালো হবে আশা করি। অনেক অনেক ধন্যবাদ মূল্যবান সময় নিয়ে পোস্টটি পড়ার জন্য।


Leave a Comment