২০২১ সালে ব্যবসা শুরুর আগে ৮টি দক্ষতা অর্জন করতে হবে

প্রত্যেকটা কাজের জন্যই একটা নির্দিষ্ট নিয়ম আছে। আর আপনি নিয়ম মেনে চললে সেই কাজ টা করা আপনার জন্য অনেকটা সহজ হযে যাবে। আসলে একটা জিনিস কি জানেন, আপনি ব্যবসা করবেন আর ব্যবসা সম্পর্কে কিছু জানবেন না সেটা তো হতে পারে না্। তাই অবশ্যই আপনাকে ব্যবসা সম্পর্কে জানতে হবে তারপর আপনাকে সেটা নিয়ে মাঠে নামতে হবে। পৃথিবীর ইতিহাসে যারা ব্যবসা শুরু করেছে তারা সবাই কিছু না কিছু বিষয় জেনেই মানে কোন বিষয় জেনেই শুরু করেছে। আমি ঢাকার একটা হোটেলে নাস্তা করতাম সেখানে একজন কর্মচারী ছিল সে দুই বছরের মত সেই হোটেলে চাকরী করার পর নিজেই একটা হোটেল দিয়েছিল। আমি কৌতুহল বসত সেখানে একদিন গেলাম দেখলাম ছোট পরিসরে হলেও অনেকটাই গোছানো তার ব্যবসাটা। এটার আসল কারণ হলো সে নিজে দুই বছর চাকরী করার মাধ্যমে ব্যবসার পুরো বিষয়টা জেনে নিযেছে যার ফলে সে আজকে সেটা করতে সাহসী হয়েছে। 

২০২১ সালে ব্যবসা শুরুর আগে ৮টি দক্ষতা অর্জন করতে হবে


আমি নিজে এরকম ৮টি দক্ষতার কথা বলবো যেগুলো আপনার অবশ্যই থাকতে হবে তাছাড়া আপনি ব্যবসা করতে গেলে অনেক কিছুই বুঝবেন না এবং সমস্যার সম্মুখীন হবেন। বিষয়গুলো হলোঃ 

 

১. মাস্টার হতে হবে 

মাস্টার হতে হবে বলতে আসলে আপনি যেই কাজ টা জানবেন সেটা নিয়ে আপনাকে গবেষণা করতে হবে আর এই গবেষনাটা আপনার নিজেকে করতে হবে। ধরুন আপনি অনলাইনে ই-কমার্সের ব্যবসা করবেন বা অনলাইনের মাধ্যমে আপনি শাড়ি বিক্রি করবেন। তাহলে আপনাকে অবশ্যই ই-কমার্স এর পুরো বিষয়টা জানতে হবে তাছাড় আপনি ভালো করতে পারবেন না। কারণ ই-কমার্স ও কিভাবে পেজ তৈরি করতে হয়, কিভাবে বিভিন্ন গ্রুপে আপনার পেজের মার্কেটিং করতে হয এসব বিষয় যদি আপনি না জানেন তাহলে কিন্তু আপনি বুঝতে পারবেন না কি ভাবে ব্যবসা টা শুরু করবেন। শুধু টাকা থাকলেই যে আপনার ব্যবসা হবে বিষয়টা এরকম নয়। টাকা থাকার সাথে সাথে আপনাকে অবশ্যই যেই বিষয় বা পণ্য নিয়ে ব্যবসা করবেন সেটা সম্পর্কে জানতে হবে। আর আপনাকে এইসব বিষয়ে জানার জন্য বেশ কিছ পদ্ধতি বলবো যেটা আপনাকে আরও বেশি আগ্রহী ও জানার জন্য সহযোগিতা করবে। 

ধরুন আপনি শাড়ির ব্যবসা করবেন তাহলে কোথায় পাইকারী দামে শাড়ি পাওয়া যায় সেটা আপনাকে বের করতে হবে আর এই শাড়ি গুলো কিভাবে আপনি পরিবহন করবেন আর কিভাবে আপনার পেজে দেবেন এসব বিষয়গুলো আপনি গুগল বা ইউটিউব দেখে শিখতে হবে। আপনি কিছুদিন প্র্যাকটিস করলেই বুঝতে পারবেন বিষয়টা। আবার আপনি ইচ্ছা করলে আরেক জন কেউ একজন শাড়ি বিক্রি করছে তার সহযোগী তাও নিতে পারেন। কারণ শুরু দিকে আপনাকে সবগুলো বিষয় সম্পর্কে মাস্টার হতে হবে প্রয়োজনে এখন ট্রেইনিং করা যায সেটাও করতে পারেন। 

২. একটি বিষয়ে মাস্টার হলেও সব কিছু জানতে হবে 

আপনি একজন গণিতের শিক্ষক। আর আপনি মনে করছেন আপনি তো গণিতের হিসেবে ভালো বোঝেন তাই আপনি পাইকারী জিনিসগুলো নিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন। আসলে আপনি গণিত ভালো পারলে একটা ব্যবসা দাড় করাতে হলে আপনাকে সবগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হবে। প্রত্যেকটা বিষয় সম্পর্কে আপনাকে জ্ঞান রাখতে হবে যদি আপনি আপনার ব্যবসা টাকে বড় করতে চান। কারণ একটা বিষয় জড়িত থাকে না ব্যবসার সাথে অনেক গুলো বিষয় নিয়েই হয় একটা পরিপূর্ণ ব্যবসা আর তাই আপনাকে অবশ্যই ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে হবে বা মাস্টার হতে হবে। 


৩. টিম বিল্ডিং তৈরি করা 

একটা টিম বিল্ডিং করতে হবে যদি আপনি আপনার ব্যবসাটাকে বড় করতে চান। টিমওয়ার্কটা আমরা আসলে কম বুঝি বা করতে চায় না। বর্তমানে আরা যতটুকু কম্পানি দেখবো তাদের কম্পানিগুলোতে এই কাজটা করানো হয় অর্থ্যৎ টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে কোন কাজ করানো হয়। আর টিমওয়ার্কের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো কোন কাজ দ্রুত ও আনন্দের সাথে করা যায়। আমাদের বিদ্যালয়গুলো টিমওয়ার্ক শেখানো হলে আমরা বিষয়গুলো ছোট থেকেই শিখতে পারবো। যারা ভারসিটিতে পড়ে তাদের বেশিভাগই এই বিষয়টা জানে আর তারা আসলে টিমওয়ার্ক এর মাধ্যমে নিজের অবস্থানটাকে ভালো করে। যেমন কোন প্রজেক্ট করার সময় টিম তৈরি করে দেওয়া হয় আর একজনকে টিমলিডার বানানো হয় যেন তিনি মরিটর করতে পারেন পুরো বিষয়টা। আসলে এভাবে কোন প্রজেক্টকে দ্রুত শেষ করা সম্ভব হয়। 

৪. গায়ে কাদা লাগানো শিখতে হবে 

গায়ে কাদা লাগানো বলতে বোঝানো হচ্ছে পরিশ্রম করা শিখতে হবে। যেমন ধরুন আপনি নতুন একটা প্রতিষ্ঠান দেবেন তাহলে আপনাকে প্রথমের দিকে নিজেকেই অনেক কাজ করতে হবে। KFC এর প্রতিষ্ঠাকে চেনে না এমন লোক পাওয়া যাবে না। তিনি প্রথমে রান্না করে বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে গিয়ে তার রান্না করা রোস্ট দিয়ে আসতেন এবং তা বিক্রি হলে তারপর টাকা নিতেন এভাবে এক সময় দেখা গেলো তার রান্না করা খাবার এতটাই টেস্টি যে অনেক কম সময়ের মধ্যে তার নাম ছড়িয়ে পড়লো আর এভাবেই একটা সময় দেখা গেলে তিনি পৃথিবীর সবচেয়ে দামী ব্যাক্তি বা একটা দামী কম্পানি প্রতিষ্ঠা করে ফেললেন। আর শুরু দিকে তিনি কিন্তু নিজেই কাজ করতেন আর এই কাজের জন্য তিনি নিজেকে কখনও ছোট মনে করেন নি। আমাদেরও উচিত হবে আমাদের শুরুর দিকের কাজগুলো নিজেই করা বা কর্মচারীদের সাথে মিলেমিশে কাজ করা। 

৫. যোগাযোগ দক্ষতা 

যোগাযোগ করার দক্ষতা বা পাবলিক কমিউনিকেশান অনেক বড় একটা বিষয় যা আপনাকে অনেক কিছু শেখাবে। আমরা অনেকেই এই গুনটা অর্জন করি না বা পারি না। আমি আমার কথাই যদি বলি তবে একটা সময় আমি নিজেকে আরেকজনের কাছে পরিচিত করার বিষয়ে অজ্ঞ ছিলাম। কিভাবে আরেকজনের সাথে কথা বলতে হয় কিভাবে আরেকজনের সাথে কথা বলে তার মন্তব্য জানতে হয় তা জানতাম না। তার অনলাইনে বিভিন্ন ব্যাক্তির কথা বলার ধরন বা তাদের প্রশ্ন করার পদ্ধতি দেখে আস্তে আস্তে শেখার চেষ্টা করেছি। আসলে সবকিছুর জন্যই আপনাকে চেষ্টা করতে হবে। আর পাবলিক কমিউনিকেশান ছাড়া আপনি আপনার ব্যবসাকে বড় করতে বা বাড়াতে পারবেন না। আমাদের মধ্যে অনেকেই এই জিনিসটা পারে না বা জানে না। একজন অপরিচিত মানুষের সাথে কিভাবে যোগাযোগ করতে হয় বা কথা বলতে হয় তা আমরা অনেকেই জানি না। আসলে এই গুনগুলো অর্জন করার জন্য আপনাকে চেষ্টা করতে হবে যদি আপনি একজন ব্যবসায়ী হতে চান। 

৬. নিজের সমালোচনা করতে শিখুন 

আমাদের একটা বদ অভ্যাস হলো আমরা অন্যের সমালোচনা করি বেশি। আসলে আমাদের উচিত নিজের সমলোচনা করা। কারণ নিজের সমালোচনা করলে নিজের ভালো গুণ গুলো আর খারাপ গুণ গুলো দেখা যায় যাতে আপনি পরবর্তী তে একজন ভালো মানুষ হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারেন। আর আত্মসমালোচনার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি নিজের ব্যাক্তিস্বত্তাকে জাগ্রত করতে পারে। নিজেই নিজের সমালোচনা করবে এরকম মানুষের সংখ্যা অনেক কম। আমরা যদি বড় কোন ব্যক্তির জীবনী পড়ি তবে দেখবে যে, তারা নিজেদেরকে তৈরি করার জন্য কিভাবে পরিশ্রম করেছে। প্রত্যেকটা বড় বড় ব্যাক্তিগুলো নিজেদের জীবনের সমালোচনাগুলো থেকে শিখে তা তাদের কাজে লাগিয়েছে। আমাদেরকে অবশ্যই নিজের সমালোচনা করা শিখতে হবে। 

৭. বড় ভাবতে হবে এবং তা বিশ্বাস করতে হবে

একটা কথা প্রচলিত আছে মানুষ তার চিন্তার চাইতেও বড়। আসলেও তাই আপনি যদি বিশ্বাস করে তবে আপনি আসলে আপনার চিন্তার চাইতেও বড়। কোন নেশা করা ব্যক্তি কেন বারবার নেশা করে জানেন ? আসলে সে নেশার মাধ্যমে নিজেকে অনেক বড় আর নিজেকে পৃথিবীর সবচেয়ে সুখি মানুষ মনে করে। আর এই ধারণাটা সে বারবার পেতেই নেশায় লিপ্ত হয়। আর এই কাজটা একজন নেশা করা ব্যাক্তি অনেক সুন্দর মত করে থাকে কারণ তার মনোযোগটা পুরোপুরি নেশার প্রতি থাকে। আপনি যদি একজন মানুষ হিসেবে করতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই সেই করা ব্যক্তির মত চিন্তা করতে হবে। কারণ আপনি স্বাভাবিক অবস্থাতে অনেক কিছু ভাবতে পারবেন কিন্তু যদি মনোযোগ দিয়ে কোন কাজ করেন তবে সেই কাজটাই আপনার বারবার মনে আসবে। আপনাকে বিশ্বাস করতে হবে আপনাকে দিয়েই সব হবে আর আপনিই পারবেন কাজটা করতে এই বিশ্বাস যদি আপনার ভেতরে না আসে তবে আপনি কখনেই বড় করে কোন কিছু ভাবতে পারবেন না। 

৮. ব্যবসার মূল বিষয় সম্পর্কে জানতে হবে 

ব্যবসার মূল বিষয় সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে। কারণ আপনি কেন কি কাজের জন্য কিভাবে এসব প্রশ্ন যখন নিজেকে করবেন তখন আপনি অনেক বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন। আর ব্যবসা করার মূল বিষয় যদি আপনি না জানেন তবে ব্যবসা করার মাধ্যমে আপনি লাভবান হতে পারবেন না। প্রত্যেকটা ব্যবসা শুরু করার কিছুদিন পর দেখা যায় তা আর টিকাতে পারছে না তার অন্যতম কারণ হলো সে সেই ব্যবসা সম্পর্কে ভালো জানে না মানে মুল বিষয়গুলো সম্পর্কে জানেন না। আর আপনিও যদি ব্যবসা শুরু করার আগে এগুলো না জেনে থাকেন তবে আপনাকে অবশ্যই জেনে নিতে হবে। যেমন, ব্যবসার অর্থ, জায়গা, কাচামাল সংগ্রহ, জনবল, লাভ করা, ধৈর্য ধারণ করা এসব বিষয়গুলো কমন যা আপনাকে জানতেই হবে। প্রত্যেকটা ব্যবসার একটা গোল থাকে সেটা হলো লাভ করা আর আপনি কি ধরনের ব্যবসা করছেন তার উপর নির্ভর করে এই বিষয়টা। 

উপরের বিষয়গুলো জানলে আপনি ব্যবসার বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে বুঝতে পারবেন। আশা করি এসব জেনে যদি আপনি ব্যবসা শুরু করেন তবে অবশ্যই ভালো করতে পারবেন। আর কি কি বিষয় আপনার জানার প্রয়োজন হতে পারে সেসব জানিয়ে কমেন্ট করুন চেষ্টা করা হবে আমাদের টিম মেম্বারদের মাধ্যমে পরবর্তীতে তা জানানোর। 


Leave a Comment