করোনার টিকা নেওয়ার আগে যা জানা জরুরী

করোনা ভাইরাস আমাদের দেশে ২০২০ সালে মার্চ মাসে আসলে এখনও এর প্রভাব অনেকটা বেশি। আর এর টিকা নিয়ে চলছে সারা পৃথিবীতে নানা রকম তথ্য ও মতামত। আসুন এখানে জেনে নিই করোনা ভাইরাসের টিকা নেওয়ার আগে আপনাকে যা যা জানতে হবে আর যে সকল বিষয় আপনাকে মেনে চলতে হবে। 

করোনার টিকা নেওয়ার আগে যা জানা জরুরী

করোনার টিকা নেওয়ার আগে যা জানা জরুরী

Table of Contents

এমন বিষয়ে বিবিসি নানা রকম তথ্য নিয়েছে। আর করোনা ভাইরাসের টিকাটা অনেক বেশি দ্রুত তৈরি করা হয়েছে বলেও জানা গেছে বিভিন্ন মাধ্যমে। বিভিন্ন গবেষক বলেছেন টিকা নেওয়া ও টিকা কোন ব্যক্তিকে দেওয়ার আগে অবশ্যই কিছু বিষয় জানা অনেক বেশি জরুরী। কারণ এই টিকাটা একেবারেই নতুন এর আগে কখনও এর প্রয়োগ করা হয় নাই। 

টিকা নেওয়ার আগে সতর্কতা

আপনারা সকলেই জানেন  যে কোন টিকা তৈরির সময় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হয় এর নিরাপত্তার দিকে। তাই এটা যখন প্রয়োগ করার সময় হয় তবে অনেক সতর্কতা মেনেই আসে। তারপরেও প্রত্যেক টিকার ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম মেনে দিতে বলা হয়ে থাকে। তারপরেও আমেরিকার একদল গবেষক ভাইজারের টিকা, অক্সফোর্ড ও মর্ডারর্নার টিকা নেওয়ার আগে নির্দেশনাগুলো ঠিকমত জানার ব্যপারে বিশেষ করে বলেছেন। টিকা দেওয়ার আগে যদি কিছূ জটিলতা থাকে তবে তা আগেই চিকিৎসককে জানাতে হবে। যেমন, 

(১) আপনার যদি কোন টিকায় আগে তীব্র এলার্জি থাকে। 
(২) তীব্রজ্বরসহ কোন অসুস্থতা থাকলে। 
(৩) দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম হলে। 
(৪) রক্তপাত ও আঘাত সক্রান্ত সমস্যা থাকলে। 
(৫) গুরুতর কোন অসুস্থতা। 
(৬) গর্ভবতি ও বুকের দুধ খাওয়ানো শিশু থাকলে। 

উপরোক্ত সমস্যাগুলো যদি আপনার বা কারো টিকা নেওয়ার আগে থেকে থাকে তবে অবশ্যই চিকিৎসককে জানাবেন। এসব তথ্য চিকিৎসককে যদি আপনি জানান তবে পরিস্থিতি অনুসারে টিকা আপনাকে দেওয়া যাবে কি যাবে না তা নির্ধারণ করে দেবেন। আর এসব রোগীদের ক্ষেত্রে সতর্কতার আসল কারণ হলো এরকম রোগীদের উপর করোনা ভাইরাসের টিকার কোন ট্রায়াল হয় নাই। 

আমেরিকার সিডিসি বা সেন্টাল ফল ডিজিস কনট্রোল এর তথ্য মতে যাদের শ্বাসকষ্ট আছে বা তীব্র এলার্জি আছে তাদের এই টিকা না দেওয়াই ভালো। যেহেতু অক্সফোর্ড, ফাইজার ও মর্ডারনার এর টিকার ক্ষেত্রে এমন নির্দেশনা আছে সেহেতু সকল টিকার ক্ষেত্রেই এই নির্দেশনাগুলো মেনে চলা ভালো। 

আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেও কি টিকা লাগবে ?

যেহেতু করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে এন্টিবডি দীর্ঘস্থায়ী হয় না তাই আপনি বা কেউ আগে আক্রান্ত হলেও দিতে হবে এই টিকা। তবে টিকা গ্রহণের সময় যদি আক্রান্ত থাকেন বা সুস্থ হওয়ার সময় যদি অল্প হয় তবে তাদেরকে অপেক্ষা করে টিকা নেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। কারা পাবে করোনা ভাইরাসের টিকা এর ক্রমটা দেখার জন্য ছবিটি দেখতে পারেন। 

করোনা ভাইরাসের টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া 

আপনি যদি কোন ঔষধ খান তবে এর নির্দেশনায় পার্শ্বপ্রতিয়াও লেখা থাকে। তেমনি করোনা ভাইরাসের ক্ষেত্রেও। তবে ্এর পাশ্বপ্রতিক্রিয়া এতটা বেশি নয়। খুব কমই এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যা কম হলেও মেনে চলার কথা বলা হয়েছে বিভিন্ন গবেষক দের কাছ থেকে। সাধারণত খুব কম ক্ষেত্রেই এই পাশ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো গুরুতরও হয়। আমেরিকার তথ্য মতে অক্সফোর্ড, ফাইজার ও মর্ডারনার টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো প্রায়ই একই রকমের। যা বলা হয়েছে প্রতি দশজনের এক জনের হতে পারে। যেমন, 

করোনা ভাইরারে সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া 

(১) টিকা দেওয়া স্থানে ব্যথা, ফোলা বা লাল হওয়া। 
(২) মাংসপেশী ও অস্থিসন্ধিতে ব্যথা। 
(৩) জ্বর হওয়া। 
(৪) ঠান্ডা ও শীত অনুভূত হওয়া। 
(৫) ক্লান্তি বোধ করা। 

এছাড়াও টিকাভেদে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে যা নির্দেশনা পড়ে নিয়ে টিকা নিলে সবচেয়ে ভালো হবে। এই সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলোকে শরীরের সাথে মানিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া হিসেবেই দেখা হয়। তবে টিকা যেহেতু নতুন তাই টিকা নেওয়ার পরে যে কোন পাশ্বপ্রতিক্রিয়া হলে তা জানানো উচিত ডাক্তারকে অনেক তাড়াতাড়িই। 

টিকা নিলেই কি স্বাস্থ্যবিধি মানা লাগবে না ?

টিকার সাথে স্বাস্থ্যবিধির তেমন কোন সম্পর্ক নেই। আর কোন টিকাই ১০০% নিরাপদ নয় বলেও জানা গেছে। তাই টিকা নিলেও আপনাকে মানতে হবে করোনা ভাইরাসের স্বাস্থ্যবিধিসমূহ। তাই আপনি টিকা নিলেও স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে হেলাফেলা করবেন না। 

বাংলাদেশ কবে পাবে করোনা ভাইরাসের টিকা 

এসব তথ্য প্রদানের বিবিসি একটা প্রতিবেদন দেয় ১২ই জানুয়ারী। বাংলাদেশ সিরাম ইন্সটিটিউটের যে টিকা নিবে তাতে একটা ডোজের জন্য খরচ পড়বে ৪০০ টাকার মত। আর এই টিকা ফেব্রুয়ারী ২০২১ এর প্রথম সপ্তাহে আসার কথা বলেও জানানো হয় প্রতিবেদনটিতে। 

বাংলাদেশ সরকার নিজেস্ব অর্থে ৩ কোটি ডোজ বিনামূলে দেবে বলেও জানা গেছে। ৩ কোটি টিকার জন্য খরচ পড়বে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার মত। 

টিকা পাবেন কারা

টিকা পাবেন কারা এমন প্রশ্নে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বলা হয় স্বাস্থ্য খাতের সাথে জড়িত ও প্রথম শ্রেণির ডাক্তারা এবং রোগ প্রতিরোধে দূর্বল ব্যক্তিরা প্রথমে পাবেন করোনা ভাইরাসের টিকা। তারপর ৬৫ বছরের বেশি তারপর ১৮ বছরের বেশি তারপর সবাই এই ভাবে ক্রম করা হয়েছে টিকা বন্টনের ক্ষেত্রে। 

আরো পড়ুন >> করোনা ভাইরাস নিয়ে আপনার যা জানা প্রয়োজন। 

আরো পড়ুন >> কোন দেশে কত মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। 

Leave a Comment