ভিডিও কনটেন্ট তৈরির মাধ্যমে অনলাইনে আয় করার ৮ টি উপায়

ভিডিও কনটেন্ট তৈরির মাধ্যমে অনলাইনে আয় করার ৮ টি উপায়

ভিডিও কনটেন্ট বর্তমানে অন্যতম একটি মার্কেটিং পদ্ধতি। অনলাইনের এই কনটেন্ট অনেক জনপ্রিয় কোন ব্র্যান্ড তৈরি করার জন্য। বর্তমানে অনেক বেশি ও অনেক দ্রুত পরিচিতি লাভ করার জন্য এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

 

ভিডিও কনটেন্ট তৈরির মাধ্যমে কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায় ?

 

ইউটিউব ভিডিওর মাধ্যমে অনলাইনে আয় করার ৮ টি উপায়। মূলত এসব বিষয় নিয়ে আজকের আর্টিকেলটি।

 

 

ভিডিও কনটেন্ট তৈরির মাধ্যমে অনলাইনে আয় করার ৮ টি উপায়

 

আজকের আর্টিকেলে আপনি ভিডিও  কনটেন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা পাবেন।

 

১. ইউটিউব ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

২. ফেসবুক ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

 

৩. বিভিন্ন পণ্যের ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

৪. রিভিউ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

 

৫. নিউজ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

৬. লাইভ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

 

৭. বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসের ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

৮. শর্ট ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা।

 

উপরোক্ত আর টি উপায়ে আপনি ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করার মাধ্যমে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

 

বিষয়গুলো আমরা অনেকেই জানি কিন্তু অনেকেই করিনা।

 

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ছোট ছোট লাইভ ভিডিওর মাধ্যমে বা ছোট ছোট কিছু কনটেন্ট তৈরি রিভিউ ভিডিওর মাধ্যমে অনলাইনে প্রচুর পরিমাণে অর্থোপার্জন করে থাকে।

 

বিভিন্ন সাইটের ভিডিও তৈরি করার মাধ্যমে অনলাইনে ভালো পর্যন করা যায়।

 

বেশ কিছুদিন আগে আমি ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে একটি চ্যানেলের সাথে পরিচিত হয় সেখানে প্রত্যেকটি ভিডিও এক মিনিটের সময় থেকেও কম সময় নিয়ে তৈরি করা হয়েছে।

 

কিন্তু এক মিনিটের মাধ্যমে অনেক কিছু বোঝানো হয়েছে।

 

পরে আমি জানতে পারি যে সেই ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রতি মাসে কয়েক লক্ষ টাকা পর্যন্ত উপার্জন করা সম্ভব হয়েছে।

 

এর বিষয় হচ্ছে গিয়ে মানুষ এখন অনেক বড় ভিডিও গুলো দেখতে পছন্দ করে বিধায় অনেক ছোট ছোট ভিডিও গুলো তৈরি করার মাধ্যমে সহজেই মানুষের মন আকর্ষণ করা সম্ভব হয়।

 

আপাতত ওপরের গুলো আলোচনা নিয়ে আজকের আর্টিকেলটি সাজানো হয়েছে।

 

 

১. ইউটিউব ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

আমরা সবাই ইউটিউব সম্পর্কে অনেক ভালো জানি। ইউটিউব থেকে আপনি আপনার ভিডিওর মাধ্যমে যেমন অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

 

তেমনি গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করে থাকতে পারেন।

 

বিভিন্ন টিভি নিউজ চ্যানেল গুলোর ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে পণ্যের বিজ্ঞাপনে বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে অর্জন করা যায়।

 

ইউটিউব এর মাধ্যমে যে পরিমাণ অর্থ প্রদান করা যায় ফিজিক্যাল কোন নিউজ চ্যানেলের মাধ্যমে এত পরিমাণ অর্থ উপার্জন করা সম্ভব হয়।

 

 

ইউটিউবে তেমন কোন খরচ নেই শুধুমাত্র একটি ভাল মানের ভিডিও কনটেন্ট তৈরির করলেই আকর্ষণ করানো সম্ভব হয়েছিল শ্রোতার ।

 

 

বর্তমান সময়ে আমরা সবাই বিভিন্ন ধরনের ভিডিও কনটেন্ট তৈরির সাথে যুক্ত থাকে বা বিভিন্ন ভিডিও কনটেন্ট দেখার সাথে যুক্ত থাকে।

 

 

ভিডিও কনটেন্ট এর অন্যতম একটি উপাদান হচ্ছে ভিডিও কনটেন্ট এর থাম্বেল তৈরি করা।

 

আমরা অনেক সময় থাম্বেল এর মাধ্যমে ভিডিও কনটেন্ট টা দেখার আগ্রহ তৈরি করে থাকি।

 

এ থেকে বোঝা যায় যে ভিডিও কনটেন্ট তৈরির মূল উপাদান হলো থাম্বেল তৈরি করা। একটি ভাল মানের থাম্বেল তৈরি করলে শ্রোতারা অনেক সহজে ভিডিওটি দেখতে আগ্রহী হয়ে থাকে।

 

 

২. ফেসবুক ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

ফেসবুক ভিডিও তৈরীর মাধ্যমে উপার্জন করতে পারেন।

 

বেশ কিছুদিন আগে অনলাইন একটি নিউজ চ্যানেলের মাধ্যমে জানা যায় যে বাইরের দেশের একটি ভিডিও কনটেন্ট তৈরির রূপ যে ছোট ছোট পণ্যের বিজ্ঞাপনগুলোর ভিডিও তৈরি করে থাকে।

 

 

তারা এই গ্রুপের মাধ্যমে মাসে কয়েক লক্ষ টাকা উপার্জন করে থাকে শুধুমাত্র ফেসবুক ভিডিও।

 

তারা যে কাজটি করে তারা মূলত বিভিন্ন কোম্পানি থেকে স্পন্সর করে নেয়। যেমন একটি কোম্পানির গেন্জি তাদেরকে দেওয়া হয় এবং তার সম্পর্কে একটি ভিডিও তৈরি করতে বলা হয়।

 

 

তাদের টিমের মধ্যে কেউ সেই গেঞ্জি অথবা সেই টি-শার্টটি পরিধান করে ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করে এবং সেটি প্রচুর পরিমাণে ভিউ আসে

 

এবং এই গেঞ্জি অথবা টি-শার্ট এর মূল্য ও অন্যান্য বিস্তারিত কমেন্ট সেকশনে দেওয়া হয়ে থাকে অথবা থাম্বেল সেকশনে অথবা ওপরে বর্ণনা ডেসক্রিপশন এ দেওয়া থাকে।

 

এগুলোকে আমরা অনেক সময় সোসিয়াল ইনফ্লুয়েন্সার অর্থাৎ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আগ্রহ তৈরি করার গ্রুপ অথবা ব্যক্তি।

 

 

৩. বিভিন্ন পণ্যের ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

ইলেকট্রনিক্স কোন প্রোডাক্ট কিনতে গেলে দেখবেন যে সেই প্রোডাক্ট এর একটি বায়োগ্রাফি অথবা একটি ডেডলাইন দেওয়া থাকে একটি ছোট্ট বইয়ের মাধ্যমে।

 

 

এটি অনেক আগের একটি ধারণা যে মানুষ সেই বইটি পড়ার মাধ্যমে সেই পণ্য কিভাবে বিজ্ঞাপন করতে হবে

 

অথবা সেটি কিভাবে ব্যবহার করতে হবে সে সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা পেয়ে যায়। কিন্তু বর্তমানে এই ধারণাটি বাদ দেওয়া হয়েছে। 

 

কারণ বর্তমান সময়ে মানুষ সেই বইটি আর পড়ে থাকে না। তাহলে কিভাবে মানুষ জানতে পারে পণ্য সম্পর্কে।

 

সেই কোম্পানির পণ্য সম্পর্কে একটি ছোট্ট বায়োগ্রাফি রিভিউ অথবা ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করে থাকে। 

 

যার মাধ্যমে তারা আকৃষ্ট হয় এবং অনেক সহজেই পণ্যের গুণগত মান এবং সেটি কিভাবে ব্যবহার করতে হবে

 

এবং সেই প্রোডাক্টটি কিভাবে ব্যবহার করলে অনেক বেশি দিন টিকতে হবে সে সমস্ত সকল বিষয়গুলো এই ভিডিও কনটেন্ট এর মাধ্যমে জানতে পারে।

 

আপনি চাইলে এ কাজটি করতে পারেন বিভিন্ন পণ্যের ছোট ছোট ভিডিও তৈরি করতে পারেন।

 

এর মাধ্যমে ভালো অর্থোউপার্জন করা যায় এবং আপনি যদি আপনার চ্যানেলটিকে একটু বড় করতে পারেন অথবা বেশি পরিমাণে মনিটাইজেশন নিয়ে আসতে পারেন তাহলে আপনি অনেক ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

 

 

৪. রিভিউ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

রিভিউ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি খুব ভালো একটি কনসেপ্ট বর্তমান সময়ে এবং ভবিষ্যৎ সময়ের জন্য।

 

আমরা ই-কমার্স সাইটে কোন পণ্য দেখতে পেলে সেই প্রশ্নটি সবার আগে যে জিনিসটা লক্ষ্য করি সেটি হচ্ছে রিভিউ।

 

বর্তমান সময় অবশ্য ফিজিক্যাল কোন বিষয় কিনতে গেলেও আমরা পণ্যটি অথবা প্রোডাক্টের রিভিউ সম্পর্কে অবগত থাকার চেষ্টা।

 

কিছুদিন আগে আমি অনলাইন থেকে একটি প্রোডাক্ট কেনার আগে সেই প্রশ্নটি রিভিউ কম দেখে আমি সেই পণ্যটি কেনার থেকে বিরত থাকি।

 

বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে আপনি যখন কাজ করবেন সে সমস্ত মার্কেটপ্লেসে কাজ করার সময় দেখবেন যে আপনার রিভিউ কেমন আছে

 

অথবা আপনি যখন কাজ করাবেন সেগুলো দিয়ে আপনি অবশ্যই রিভিউ চেক করে নেবেন।

 

এটাকে একটি পণ্যের রিভিউ সম্পর্কে আমরা ধারণা নিতে পারি। পণ্যটির রিভিউ ভালো থাকলে আমরা সেটি অবশ্যই ব্যবহার করব

 

এবং রিভিউ খারাপ থাকলে আমরা সেই প্রশ্নটি ব্যবহার থেকে বিরত থাকব।

 

তাই আপনি যদি অনলাইনে আয় করার জন্য একটি সহজ মাধ্যম খুঁজে বের করতে চান তাহলে এই কনসেপ্টে

 

অথবা এই ধারণাটি নিয়ে কাজ করতে পারেন। এর মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে অর্থ আয় করা সম্ভব হয় অনলাইনে।

 

 

৫. নিউজ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

নিউজ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করাও একটি বড় একটি অংশ অনলাইন জগতে। কারন একটি নিউজ ভিডিও তৈরি করার জন্য আপনাকে বেশ খানিকটা সময় ব্যয় করতে হয় অথবা একটি ছোটখাটো টিম এর প্রয়োজন হয়।

 

 

বর্তমান সময়ে নিউজ সাইট গুলোতে অবশ্যই অনেক ধরনের লোক কাজ করে থাকে। তাদের মধ্যে কেউ গ্রাফিক্স নিয়ে কাজ করে।

 

কেউ পিকচার নিয়ে কাজ করে। কেউ ভিডিও অ্যানিমেশনের কাজ করে। অথবা কেউ নিউজ কালেকশন নিয়ে কাজ করে।

 

এর সমস্ত নিউজ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করার মাধ্যমে অনলাইন থেকে আয় করা সম্ভব হয়।

 

যদিও শুরুর দিকে নিউজ ভিডিও গুলো বেশি প্রচার হয়ে থাকে না তারপরে একটা সময় যখন সেই চ্যানেল অথবা সেই ভিডিও কনটেন্ট অংশের প্রচার বেশি হয়ে যায় অবশ্যই একটা সময় সেখান থেকে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব হয়।

 

 

৬. লাইভ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

লাইভ ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করাটা একটু কঠিন কাজ। বিষয়টা যদি বোঝায় তাহলে এভাবে বলতে হয়।

 

ধরুন আপনি একটি রেস্টুরেন্টে খেতে গেলেন তাহলে লাইভ খাওয়ার ভিডিও তৈরি করার মাধ্যমে রেস্টুরেন্ট সম্পর্কে আপনি একটি রিভিউ তৈরি করে নিতে।

 

পরবর্তী সময়ে অনেকেই আছে যে এই ভিডিওটি দেখার মাধ্যমে সেই রেস্টুরেন্টের কেনার প্রতি আগ্রহ এবং সেই রেস্টুরেন্টে গিয়ে ক্রেতার সংখ্যা বাড়াতে থাকে।

 

এই ভিডিওটি দেখার মাধ্যমে অনেক ক্রেতা এসে রেস্টুরেন্টে গিয়ে খেতে আগ্রহী হয়ে থাকে।

 

এভাবে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে ভিডিও তৈরি করতে পারবেন অনলাইনে।

 

বর্তমান সময়ে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের অনেক বেশি চাহিদা রয়েছে আর সেটা যদি হয় ভিডিও অ্যাফিলিয়েটিং মার্কেটিং তাহলে তো কোন কথাই নেই।

 

 

৭. বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসের ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসগুলোতে আপনি ছোট ছোট ভিডিও তৈরি করে সেই কনটেন্ট গুলো অবশ্যই ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে আপলোড করার মাধ্যমে আয় করে নিতে পারেন।

 

আমরা অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং কাজের সাথে যুক্ত কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং কাজের মধ্যে ভিডিও এডিটিং অথবা ভিডিও তৈরি করাও যে একটা ফ্রিল্যান্সিং কাজ সেটি অনেকেই জানিনা।

 

আমাদের কাজের একটি ভিডিও তৈরি করলেও আমরা সেই ভিডিওটি অনেক সময় বাইরের কোন অংশ থেকে তৈরি করে নিয়েছি।

 

কিছুদিন কিছুদিন আগে একটি ফেসবুকে আমি একটি পোস্ট দেখেছিলাম। সেখানে একটি ওয়েবসাইটের রিভিউ কনটেন্ট তৈরি করার জন্য একজন ভিডিও এডিটর খোঁজ করা হয়েছে।

 

সে ভিডিও এডিটরের কাজ হবে সেই ওয়েবসাইটটির কিভাবে রান করা হয় কিভাবে কাজ করা হয় সেই সম্পর্কে একটি ছোট্ট ভিডিও তৈরি করবে।

 

এতে তাদের অনেক পরিমাণে বাজেট ছিল এবং সে ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করে দিতে পারলে অল্পসময়ের মাধ্যমে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব হয়।

 

 

৮. শর্ট ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা

বর্তমান সময়ে শর্ট ভিডিও অনেক জনপ্রিয় একটি ভিডিও। শর্ট ভিডিওর মাধ্যমে লাইকি অথবা টিকটক এত জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠে এসেছে।

 

লাইকি অথবা টিকটকের ভিডিও গুলো দেখে থাকবেন নিশ্চয়ই এগুলো অনেক বড় ভিডিও নয়।

 

এই ভিডিও গুলোর মাধ্যমে আমরা অনেক সহজেই আকৃষ্ট হতে পারি। এইসব টাইপের ভিডিওগুলো একটা সময় মানুষ দেখত না কিন্তু বর্তমান সময়ে মানুষ সময় স্বল্পতার কারণে এই শর্ট টাইম এর ভিডিওগুলো বিকল্প বিনোদনের একটি অন্যতম মাধ্যম হিসেবে নিয়েছে।

 

 

আপনি চাইলেই শট টাইপ এর ভিডিও তৈরি করার মাধ্যমে একটি মার্কেটে কাজ করতে পারেন ফ্রিল্যান্সার।

 

অথবা আপনার নিজের চ্যানেলে এই ভিডিওগুলো অথবা নিজের পেজে এই ভিডিওগুলো দেয়ার মাধ্যমে ফেসবুক কোম্পানি অথবা ইউটিউব কোম্পানি থেকে গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করে নিতে পারে।

 

 

অনেক সময় পরিচিতি লাভ করতে পারলে সেইসব টাইপের ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করার মাধ্যমে আপনি প্রচুর পরিমাণে অনলাইনে কাজ পেতে পারেন।

 

 

উপরের আলোচনা থেকে দেখা যায় যে, ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করে অনলাইনে প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করা যায়।

 

 

অর্জন করার জন্য কখনোই অনেক বেশি কিছু প্রয়োজন হয় না অবশ্যই আপনাকে যে কাজটি করতে পারেন সেই কাজটি সম্পর্কে দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

 

অনলাইনে স্কিল অথবা অনলাইন দক্ষতা আপনাকে আপনার মার্কেটপ্লেসে অথবা আপনার উপার্জনের একটি অন্যতম মাধ্যম হিসেবে কাজ করতে পারে।

 

 

তাই আর দেরি না করে আপনি অনলাইনে কোন কাজে দক্ষ সেই কাজে দক্ষতা অর্জন করুন অথবা কোন একটি স্পেসিফিক কাজে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে আপনি দক্ষতা অর্জন করে নিতে পারেন।

 

যদিও আর্টিকেলটি ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করা সম্পর্কে বলা হয়েছে তার পরেও আমি ব্যক্তিগতভাবে বলব যে আপনি অনলাইনে যে কোন ধরনের কাজের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

 

 

অনেক ধন্যবাদ মূল্যবান সময় নিয়ে কন্টেন্টটি পড়ার জন্য। এই কনটেনট বা আর্টিকেল সম্পর্কে কোন মন্তব্য থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

 

Leave a Comment