গুগল অ্যাডসেন্স ও এসইও এর জন্য যা জানতে হবে আপনাকে

গুগল অ্যাডসেন্স ও এসইও এর জন্য যা জানতে হবে আপনাকে

 

আমরা সবাই জানি গুগল অ্যাডসেন্স থেকে বর্তমানে অনেক ভালো আয় করা সম্ভব হচ্ছে। আজকের আর্টিকেলে আমি ওয়েবসাইটের এসইও করার জন্য কিছু বিষয় জানা জরুরী বিষয় তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

 

 

গুগল অ্যাডসেন্স থেকে কিভাবে আয় করা যায় ? ২০২১ এ কি কি আপডেট করেছে গুগল অ্যাডসেন্স ? অনলাইন আয় করার ক্ষেত্রে গুগল অ্যাডসেন্স কতটা ভালো ? এই সকল বিষয় আপনাকে অবশ্যই জেনে রাখতে হবে ওয়েবসাইট তৈরি বা চালানোর ক্ষেত্রে।

 
 
 
গুগল অ্যাডসেন্স ও এসইও এর জন্য যা জানতে হবে আপনাকে

 

 
 
 
আপনি সাইটের এসইও করবেন তার জন্য আপনি ভালো কনটেন্ট খুজতেছেন বা দিতেছেন তারপরেও Rank করছে না তাহলে নিচের বিষয়গুলো লক্ষ্য করুন।
 
 
 

১. অবশ্যই ব্লগার হলে প্রিমিয়াম থিম প্রয়োজন। আর ওয়ার্ডপ্রেস হলে ভালো মানের হোস্টিং ও প্রিমিয়াম থিম ও প্রিমিয়াম প্লাগইন।

 
অনেকেই আছেন এই বিষয়টার সাথে দ্বিমত পোষন করবেন। তবে আমার মতে এখানে যারা নতুন আসছেন তারা তো যারা পুরানো আছেন তাদের মত এক্সপার্ট নন। আর তাদের জন্যই আমি বলবো আপনি যদি প্রফেশানলভাবে শুরু করেন তবে অবশ্যই প্রিমিয়াম জিনিস ব্যবহার করে কাজ শুরু করেন।
 
 
প্রিমিয়াম থিমগুলোতে ফ্রি থিমের থেকে কিছু কোর্ড কম থাকে বিধায় রান করতে কম সময় লাগে।
 
 
তারপরেও আরো কিছু বিষয় জড়িত থাকে প্রিমিয়াম থিমগুলোতে। এখানে জাভাস্ক্রিপ্ট কোর্ড দেওয়া থাকলেও সেটা তুলনামূলকভাবে কম থাকে। আর এই সকল কারণে আপনি আপনার সাইটাকে নিজের মত করে কাস্টোমাইজেশান করতে পারবেন।
 
 
অনেক সময় ফ্রি থিমগুলো সুন্দর করে কাস্টোমাইজেশান করা যায় না। আর একটা সাইট যদি ডাইনাকি না হয় তবে সেটা নিয়ে তো আসলে ভালো কাজ করা কঠিন হয়ে পড়ে।
 
 
 
 

২. ইমেজগুলো যেন কপিরাইট না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন।

ইমেজ কপিরাইট চেক করার জন্যও ভালো কিছু ওয়েবসাইট আছে আপনি চাইলেই সেখান থেকে আপনার ইমেজটা কপিরাইট কিনা তা চেক করে নিতে পারেন। কপিরাইট ইমেজের কারণে আপনার সাইটের Rank ও দ্রুত পোস্ট ইনডেক্স করা থেকে বিরত থাকতে পারে।
 
 
অনেক সময় আমরা কপিরাইট ফ্রি সাইট থেকে ইমেজ ব্যবহার করি। আসলে এই বিষয়টার কারণে অনেক সময় দেখা গেছে যে, আমরা ইমেজটাকে ঠিকমত ইডিট করি নাই ফলে গুগল সেই ইমেজের স্বত্ব আমাকে না দিয়ে অন্য কাউকে দিয়েছেন। ইমেজের অলটার ট্যাগ এবং টাইটেল অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।
 
 
 
 

৩. নিয়মিত পোস্ট করা মানে আপনি সপ্তাহে একটা করেন কিন্তু প্রতি সপ্তাহেই করতে হবে।

গুগল অ্যাডসেন্স এর জন্য গুগল নিয়মিত রোবট পাঠাবে আপনার সাইট চেক করার জন্য। আর গুগলের রোবট একটা ফিক্সড সময়ে আপনার সাইটে ছবি বা তথ্য আপলোড হয় বিষয়টা যখন লক্ষ করবে তখন গুগল এর রোবট আপনার সাইটের প্রতি একটা পজেটিভ ধারণা পোষণ করবে।
 
 
ধারণা করা হয় আপনি যদি সপ্তাহে দুইটা পোস্ট করেন তাহলে শুক্রবার ও সোমবার পোস্ট করাটা অনেক ভালো। আবার আপনি যদি সপ্তাহে চারটি পোস্ট করেন তাহলে এই দুইদিন ছাড়াও আপনি আরও বাড়তি দুইদিন যুক্ত করে নিতে পারেন।
 
 
তবে অবশ্যই একটা নির্দিষ্ট সময়ে পোস্ট করবেন। কখনই এমন যেন তা হয় যে, আপনার পোস্ট করার মধ্যে কোন নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসরণ করা হচ্ছে না। রোবট যদি আপনার সাইটের পোস্টগুলো নিয়মিত পেতে থাকে তবে অবশ্যই আপনার সাইটকে গুগল Rank করাবে।
 
 
 
 

৪. পোস্টগুলো আপডেট দরকার হলে সেটা করতে হবে নিয়মিত।

কিছু পোস্ট আছে যেমন, ধরুন প্রতিদিনি আবহাওয়া নিয়ে আপনি আপনি আর্টিকেল দেন সেজন্য আপনাকে অবশ্যই কিন্তু প্রতিদিন আবহাওয়াটা আপডেট দিতে হবে।
 
 
এই ধরনের আপডেটযুক্ত পোস্টগুলোকে গুগল অনেক ভালো Rank দেয়। অনেক সময় এটা সাপ্তাহিক হয় আবার অনেক ক্ষেত্রে মাসিকও হয়ে থাকে। তবে যে সকল পোস্ট বা আর্টিকেল আপডেট করার সেগুলোকে নির্দিষ্ট সময়েই আপডেট করার চেষ্টা করতে হবে।
 
 
সময়ের ক্ষেত্রে অবশ্যই অটো করে রাখবেন তাহলে গুগল অনেক ভালো বুঝতে পারবেন। গুগলের কাছে আপনার সাইটটাকে বোঝাতে হবে যে, আপনার সাইটটাতে যেসব তথ্য আছে তার জন্য ভিজিটর আসবেই আসবে।
 
 
 
 
 

৫. কী-ওয়ার্ড রিসার্চ করা ছাড়া আপনি যত ভালো আর্টিকেলই দেন না কেন সুবিধা করতে পারবেন না।

 
কী-ওয়ার্ড অনেক জররী সাইটটাকে দ্রুত Rank করানোর জন্য। কারণ হলো যে, আপনি যদি আপডেট নিয়ে বা আপনার পোস্টটার মত পোস্টকে বিট করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে Key-Word রিসার্চ করে নিতে হবে।
 
 
 
আপনার যেই সকল Key-Word রিসার্চ করে শব্দ ব্যবহার করবেন সেগুলো তো গুগল অনেক দ্রুত ইনডেক্স করে নিবে। আর গুগল ইনডেক্স করে নেওয়ার অর্থই হলো আপনি আপনার সাইটটাকে একটা প্রতিযোগীতার দিকে নিয়ে যেতে পারবেন।
 
 
 
 
 
অনেক ধন্যবাদ মূল্যবান সময় দিয়ে আর্টিকেলটি পড়ার জন্য। আশা করবো আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনারা সকলেই উপকৃত হয়েছেন।

Leave a Comment